ঢাকা, ||

‘জামায়াতের কাজে প্রমাণ হবে তারা কতটা পাল্টেছে’


ফিচার

প্রকাশিত: ৫:৫৭ অপরাহ্ণ, জুন ২৮, ২০১৯

অনলাইন ডেক্স:

বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধে বিরোধিতা করা রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামী বর্তমানে কতটা পাল্টেছে এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় কতটুকু বিশ্বাস করে, তা দলটির কার্যক্রমে প্রমাণ হবে বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এই কথা বলেন।

জামায়াতের নেতাকর্মীরা অনেক পরিবর্তন হয়েছেন এবং তারা দেশকে ভালোবাসেন-এলডিপির সভাপতি অলি আহমদের এমন বক্তব্যের জবাবে এই মন্তব্য করেন সেতুমন্ত্রী।

অলি আহমেদের বক্তব্যের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তার জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আসলে বাস্তবতা কি সেটা দেখতে হবে সরেজমিনে। তারা পরিবর্তিত কোন রূপ নিয়ে এসেছে কি না। এটা তাদের কাজের মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হবে।’

‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করে? আর সেটা কতোটা করে, সেটা তাদের কার্যক্রমের উপর নির্ভর করবে। এর জন্য অপেক্ষা করতে হবে।’, বলেন তিনি।

কর্ণেল অলির নতুন প্ল্যাটফর্ম কেমন হবে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আসুক, গণতান্ত্রিক রাজনীতিত আসুক। নতুন প্ল্যাটফর্মকে আমরা অবশ্যই স্বাগত জানাবো, আমরা এর বিরুদ্ধে নই। নতুন প্ল্যাটফর্ম এসে রাজনীতিটা কি করছে সেটার উপর নির্ভর করছে আসলে তারা কি চায়।’

বরগুনায় রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা ‘সরকারের বিচারহীনতার প্রমান’ বলে বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের বিষয়ে সরকারের এই মন্ত্রী বলেন, ‘এই দেশে বিচারহীনতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বিএনপি, তাদের মুখে এই কথা শোভা পায় না।’

আওয়ামী লীগের সদস্য সংগ্রহের জন্য জেলা-উপজেলায় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, ‘আমরা সদস্য সংগ্রহ শুরু করে দিয়েছি। নতুন সদস্য সংগ্রহ করা হবে, আর যারা আগে আছেন তাদের নবায়ন করতে হবে। আমাদের পার্টির সভাপতির নির্দেশক্রমে আমি সকল জেলা উপজেলার নেতাদের সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন বই সংগ্রহ কারার জন্য নির্দেশনা দিচ্ছি।’

আওয়ামী লীগের এবারের সদস্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে যুদ্ধাপরাধী জামায়াত পরিবারের কেউ সংশ্লিষ্ট হতে চাইলে নেওয়া হবে কি না- জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গত বছর আমরা সদস্য সংগ্রহ অভিযান চালিয়েছি এবং ভালোভাবে সম্পন্ন হয়েছে। শেষ হওয়া পর্যন্ত আমাদের কাছে এ ধরণের কোন অভিযোগ আসেনি। এবার সদস্য সংগ্রহে কাজ করছে অনেক নীবন নেতাকর্মী। আমরা এবার আওয়ামী লীগের নির্বাচনে যারা অংশ নিয়েছে তাদের সদস্য করবো। অন্যান্য দলের কাউকে সদস্য করার ব্যপারে আমরা কোন সিদ্ধান্ত নেইনি। তবে যুদ্ধাপরাধীদের ছেলে, এসব বিষয় কঠোরভাবে দেখা হবে।

আমরা যাকে সদস্য করবো তার বিষয়টা দেখবো। সে কি করতো। তার কোন অপরাধী মনোভাব আছে কি না, কোন সাম্প্রদায়িক শক্তির সঙ্গে যুক্ত আছে কি না। সেটাকে আমরা মুল বিবেচনায় নেব। সে আসলে কে, সেটা আমরা দেখতে যাবো। স্বাধীনতার ৪৭ বছর পর তার বাবা বা পরিবার কি ছিল সেটা নয়। তার বাবা মা ও একদম নিকট আত্মীয়ের বিষয়টা আলাদা। এই বিষয়টা আমরা দেখবো।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক আব্দুস সবুর, তথ্যপ্রযুক্তি সম্পাদক আফজাল হোসেন, কেন্দ্রীয় সদস্য মারুফা আক্তার পপি ও আনোয়ার হোসেন।

Top