ঢাকা, ||

নাজিরপুরে ক্ষতিগ্রস্থ হিন্দু এলাকা পরিদর্শনে ড. নিম চন্দ্র


না‌জিরপুর

প্রকাশিত: ৫:০৪ অপরাহ্ণ, মার্চ ৭, ২০১৯

নাজিরপুর সংবাদদাতা:

পিরোজপুরের নাজিরপুরে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা উপজেলার পশ্চিম বানিয়ারী গ্রাম পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খিস্টান ঐক্য পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ড. নিম চন্দ্র ভৌমিক।

বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি উপজেলার মাটিভাঙ্গা ইউনিয়নের পশ্চিম বানিয়ারী গ্রাম পরিদর্শনে আসেন। এ সময় তিনি স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেন এবং ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা ঘুরে দেখেন।

এ সময় তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক রবিন্দ্র নাথ বসু, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের নাজিরপুর উপজেলা শাখার আহবায়ক সূখ রঞ্জন বেপারী, হিন্দু বৌদ্ধ খিস্টান ঐক্য পরিষদের পিরোজপুর জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক সন্তোষ কুমার মজুমদার, হিন্দু বৌদ্ধ খিস্টান ঐক্য পরিষদের নাজিরপুর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব কুমার রায়, ছাত্র যুব ঐক্য পরিষদের নাজিরপুর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সুমন মিস্ত্রী প্রমুখ।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ড. নিম চন্দ্র ভৌমিক বলেন, আমরা যে ঘটনা শুনে এখানে এসেছি, স্থানীয়দের সাথে কথা বলে তার সত্যতা পেয়েছি। প্রায় ১৫/১৬ বছর ধরে এ গ্রামে বসবাসরত হিন্দুদের প্রায় ১শ’ বিঘা সম্পত্তি ভুমি দস্যুরা জোর পূর্বক ভোগদখল করছে। তাদের ওপর নির্যাতন করছে। ইতোমধ্যে অনেকে এ দেশ ছেড়ে ভারতে চলে গেছে। বাকী যারা রয়েছে তারা সাবেক সচিব জগদ্বিশ চন্দ্র বিশ্বাসের আশ্রয়ে এখানে রয়েছে। তাদের মানুষিকভাবে দুর্বল করতেই সন্ত্রাসীরা জগদ্বিশ চন্দ্র বিশ্বাসের গ্রামের বাড়ীর ঘরটিতে অগ্নিসংযোগ করে পুড়িয়ে দিয়েছে। যারা নিরীহ জনগণের ওপর আক্রমণ করছে তাদের প্রতিহত করতে হবে। রাষ্ট্রের প্রত্যেক নাগরিকের নিরাপত্তা সরকারকে নিশ্চিত করতে হবে।

উল্লেখ্য, গত শনিবার রাত ১১ টার দিকে উপজেলার মাটিভাঙ্গা ইউনিয়নের পশ্চিম বানিয়ারী গ্রামের সঞ্জয় বিশ্বাসের ভোগ দখলীয় জমি দখল করতে স্থানীয় ইউপি সদস্য নজরুল সরদারের নেতৃত্বে শতাধিক সন্ত্রাসীরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ওই জমিতে প্রবেশ করে তাদের মাছের ঘের থেকে মাছ লুট-পাট শুরু করে। এ সময় স্থানীয় গ্রাম পুলিশ ওয়াদুদ তাদের বাধা দিলে সন্ত্রাসীরা তাকে মারধর করে। বিষয়টি তারা মাটিভাঙ্গা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে জানালে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তাদের প্রতিরোধ করার চেষ্টা করলে সন্ত্রাসীরা পুলিশদের ওপর চড়াও হয়। পরে অতিরিক্ত পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনেন।

এ ঘটনার জের ধরে সন্ত্রাসীরা ওইদিন রাত অনুমান ৩ টার দিকে ওই মাছের ঘেরে পার্শ্ববর্তী অবসরপ্রাপ্ত সচিব জগদ্বিশ চন্দ্র বিশ্বাসের গ্রামের বাড়ীর বসত ঘরে অগ্নিসংযোগ করে। সংবাদ পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা সেখানে পৌছানো আগেই ঘরে থাকা মালামালসহ বসতঘরটি পুড়ে ছাঁই হয়ে যায়। এ অগ্নিসংযোগের ঘটনায় স্থানীয়রা ইউপি সদস্য নজরুল সরদারকে দায়ী করেছেন। তবে অভিযুক্ত নজরুল সরদার এ ঘটনায় দায়ী নন বলে দাবী করেন।

Top