ঢাকা, ||

খাসোগি হত্যার ঘটনায় সৌদিতে অস্ত্র রপ্তানি বন্ধ করল জার্মানি


আন্তর্জাতিক

প্রকাশিত: ৮:৩৩ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০১৮

অনলাইন ডেক্সঃ

জার্মান চ্যান্সেলর এঙ্গেলা মের্কেল রোববার বলেছেন, সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে নৃশংসভাবে হত্যার পর বার্লিন এখন সৌদিতে অস্ত্র রপ্তানি বন্ধ রাখবে।

তার দলের প্রধান কার্যালয়ে মের্কেল সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা সীমিত আকারে (সৌদি আরবে) অস্ত্র রপ্তানি করছি। যারা বলছেন এটা বর্তমান পরিস্থিতিতে চালু রাখা যেতে পারে না, তাদের সঙ্গে আমি একমত।’

তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাস শনিবার বলেছিলেন, তিনি বর্তমানে ‘কোনও কিছুর ভিত্তিতেই সৌদি আরবে অস্ত্র রপ্তানির পক্ষে সিদ্ধান্ত নেয়া সম্ভব নয়’, জানায় বার্তা সংস্থা এএফপি।

সৌদি আরবে ৪৮০ মিলিয়ন ডলার মূল্যের অস্ত্র রপ্তানির অনুমোদন গত মাসে দিয়েছিল জার্মানি। আগে বার্লিন মূলত সৌদি আরবে পেট্রোল বোট রপ্তানি করত।
মের্কেল কঠোর ভাষায় খাসোগি হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়ে বলেন দ্রুত এই মামলাটিকে ধোঁয়াশা কাটানোর আহ্বান জানান।

একই সঙ্গে মের্কেল এই ঘটনাটির প্রতিক্রিয়ায় সমন্বিত পদক্ষেপে গ্রহণের জন্য অন্যান্য দেশের সঙ্গেও আলোচনা করবেন বলে জানিয়েছেন।

জার্মানি ও সৌদি আরবের মধ্যে ১০ মাস শীতল সম্পর্ক বিরাজমান থাকার পর সেপ্টেম্বর মাসে দেশ দু’টি নতুন করে পরস্পরের রাষ্ট্রদূত পাঠায়। লেবাননে সৌদি আরবের হস্তক্ষেপের বিষয়ে বার্লিনের সমালোচনার কারণে দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্কের অবনতি হয়েছিল।

আগে একটি যৌথ বিবৃতিতে ব্রিটেন, ফ্রান্স ও জার্মানি খাসোগি সৌদি কনস্যুলেটের ভিতর খাসোগি কিভাবে মারা গেছেন তার স্পষ্ট ব্যাখা দেয়ার আহ্বান জানিয়েছিল সৌদি আরবকে।

গত ২ অক্টোবর ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে খাসোগি তার আগের বিয়ের তালাকের কাগজপত্র আনতে যান। এরপর তার আর কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। পরের ১৮ দিন ধরে সৌদি আরব এই ঘটনায় কোনোভাবে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করে।

১৯ অক্টোবর সৌদি আরব প্রথমবার স্বীকার করে খাসোগি কনস্যুলেটের ভিতর নিহত হয়েছে। কিন্তু আন্তর্জাতিক মহল এই বিবৃতি মেনে নেয়নি। এরপরের দুই দিন সৌদি আরব একাধিকবার তাদের বিবৃতি পাল্টেছে।

সর্বশেষ বিবরণে সৌদি আরব বলছে খাসোগিকে কনস্যুলেটের ভিতর হত্যা করা হয়েছে ভুলক্রমে এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে অবগত ছিল না।

Top